জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করল প্রমিলা টাইগাররা

সিরিজ নিশ্চিত হয়েছিল আগেই। তাই তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচটিতে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করা। সেই লক্ষ্যে মাত্র ৭৩ রান তাড়া করতে নেমে ৭ উইকেট এবং ১৯০ বল হাতে রেখে বিশাল জয় তুলে নেয় প্রমিলা টাইগাররা। আর এতেই ঘরের মাঠেই জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ।

টস হেরে প্রথমে ফিল্ডিং করতে নেমে বাংলাদেশের বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি জিম্বাবুয়ের ব্যাটাররা। অভিষিক্ত বাঁহাতি পেসার ফারিহা ইসলাম তৃষ্ণা করেছেন দুর্দান্ত বোলিং। সিরিজ আগেই নিশ্চিত হওয়ায় তৃতীয় ম্যাচে বিশ্রাম দেওয়া হয় জাহানারাকে। তবে জাহানারার শূন্যস্থান বুঝতে দেননি তৃষ্ণা। ৩.২ ওভারে ১৭ রানের বিনিময়ে তুলে নেন দুটি উইকেট।

তবে এদিন বল হাতে বাংলাদেশের সেরা পারফর্মার ছিলেন বাঁহাতি স্পিনার নাহিদা আক্তার। ১০ ওভারে ২১ রান দিয়ে তুলে নিয়েছেন ৫টি উইকেট। যার মধ্যে তিন ব্যাটারকে রানের খাতা খুলতে দেননি। তৃষ্ণা ও নাহিদার ৭ উইকেট শিকারের পর বাকি তিন উইকেটের একটি ছিল রান আউট। বাকি দুটি উইকেট নিয়েছেন রুমানা আহমেদ।

টাইগ্রেসদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে মাত্র ২৭.২ ওভারে ৭২ রানে অলআউট হয়ে যায় স্বগাতিক জিম্বাবুয়ে।

মামুলি লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশ খেলে মাত্র ১৮.২ ওভার। নিয়মিত ওপেনার শারমিন আক্তারকে বিশ্রামে পাঠিয়ে শেষ ম্যাচে সুযোগ দেওয়া হয় নুজহাত তাসনিয়াকে। সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। মাত্র ১০ রানে সাজঘরে ফিরেছেন। আগের ম্যাচে অর্ধশতক হাঁকানো মোর্শেদা ৩৯ রান করে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন। দুই ম্যাচ পর খেলতে নামা অধিনায়ক নিগার থেমেছেন মাত্র ১২ রান করে।

জয়ের বন্দর থেকে মাত্র ৯ রান দূরে থাকতেই দুটি উইকেট হারায় বাংলাদেশ। নিগারের পর সোবহানা মোস্তারী (১) রানে আউট হন। তবে শেষ পর্যন্ত মোর্শেদা দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়ে। আর এতেই জিম্বাবুয়েকে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ।