ধেয়ে আসছে ঘূর্ণীঝড়, সতর্ক থাকার আহবান

0
17

দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত গভীর একটি নিম্নচাপ ঘণীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’ এ পরিণত হয়েছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসমূহকে ২ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদফতরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী শনিবার (১৬ মে) রাত ৯টায় ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১৩৫৫ কিলোমিটার, কক্সবাজার থেকে ১২৯০ কিলোমিটার, মোংলা থেকে ১২৯০ ও পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ১২৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছিল। ধরনা করা হচ্ছে আগামী ২০ মে সুন্দরবন ও তৎসংলগ্ন উপকূলে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’।
আবহাওয়া গবেষক মোস্তফা কামাল জানান, লঘুচাপ থেকে যে নিম্নচাপটি হতে যাচ্ছে এটা শেষ পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। আগামী ১৯ কিংবা ২০ মে কোনো এক সময়ে উপকূলে আঘাত করতে পারে এটি।

তিনি জানান, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইসিএমডব্লিউএফ) আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল নির্দেশ করছে যে, ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের উড়িষ্যা উপকূলে আঘাত হানতে পারে। তবে অন্যান্য আবহাওয়ার মডেলগুলো ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে বলে ইঙ্গিত দিচ্ছে।
আমেরিকার মডেল নির্দেশ করছে, ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজার-চট্টগ্রাম উপকূলে আঘাত হানতে পারে। কানাডার মডেল বলছে, এটি সুন্দরবন উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

আবহাওয়া অধিদফতরের আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন বলেন, এটি ঘূর্ণিঝড় হবে কি না, তা আজ শুক্রবার বোঝা যাবে। কারণ অনেক সময় নিম্নচাপেও সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড় শক্তি হারায়।
এদিকে আজ শুক্রবার দেশের কয়েকটি জেলায় বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ ভারি বৃষ্টি হতে পারে বলে আবহাওয়া পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY